Maintance

১৬ বছরের কিশোরের ভিডিও গেইম কোম্পানি!

প্রকাশঃ ২:২১ অপরাহ্ন, জুলাই ২৬, ২০১৬ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১১:২২ অপরাহ্ন, জুলাই ২৬, ২০১৬

শামীম রাহমান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ডেভিড এইসম্যান। বয়স এখনও ১৬।আর পাঁচজনের মতো নয় সে। এমনকি সমবয়সী ক্ষুদে প্রোগ্রামারের মতোও নয় এ প্রতিভাবান কিশোর। সে নিজেকে প্রোগ্রামারের পাশাপাশি ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচয় দিতে পছন্দ করে। সে চায় তার প্রতিষ্ঠানটিকে ভিডিও গেইম ইন্ড্রাস্টিতে এগিয়ে নিতে।

১৬ বছরের এ কিশোর ‘পিক্সেলম্যান প্রোডাকশন’ নামের একটি ভিডিও গেইম প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী। প্রতিষ্ঠানটি চলতি বছরের জানুয়ারিতে যাত্রা করেছে।

প্রতিষ্ঠানটি তৈরি করতে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়েছে তাকে। নিজের মধ্যে চেপে রাখা অসম্ভব জিদ ও ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফসল তার এই প্রতিষ্ঠান।

david eisman-techshohor

এই প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগ গ্রহণের পেছনে রয়েছে একটি গল্প। ছোট বেলা থেকেই এইসম্যান ভিডিও গেইমের প্রতি আগ্রহী ছিলেন। নিজের চেষ্টায় ভিডিও গেইম তৈরিতে অনেক দূর এগিয়ে যায় সে। নিজে একটি গেইমও বানিয়ে ফেলে।

এ রকম একটা সময়ের মধ্যে এইসম্যান সিদ্ধান্ত নেয় কোনো ভিডিও গেইম প্রতিষ্ঠানে শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করার। সে অনুযায়ী বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে যোগাযোগও করেন। বয়স কম নয়, ভিডিও গেইমের অভিজ্ঞতা বেশি বলে তাকে নিতে চাননি।

নিয়োগ কর্তারা বলেছেন, ভিডিও গেইম তৈরিতে তার অভিজ্ঞতা রয়েছে এবং সে ইতোমধ্যেই একটি ভিডিও গেইম তেরি করে ফেলেছে। এ কারণে তাকে কোনো প্রতিষ্ঠান শিক্ষানবিশ হিসেবে নেয়নি।

এইসম্যান জানায়, যখন কোনো প্রতিষ্ঠানেই শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করার সুযোগ হচ্ছিল না, তখন সে নিজেই একটি ভিডিও গেইম প্রতিষ্ঠান তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে।

david eisman2

স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দিতে ইন্টারনেটে খোঁজ-খবর শুরু করে এই ক্ষুদে সিইও। সে জানায়, “আমি প্রায় প্রতিটি ভিডিও গেইম সাইট পর্যবেক্ষণ করি এবং সেসব প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম সম্পর্কে জানার চেষ্টা করি। এসব দেখার পর আমি বিজ্ঞাপন দেওয়া শুরু করি।”

সে আরও বলে, বিজ্ঞাপনে আমি উল্লেখ করি, ‘একটি ভিডিও গেইম প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে চাই। যৌথ অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে আমি প্রতিষ্ঠানটি চালানো হবে।’

এই বিজ্ঞাপন দেখে অনেকে তাকে পাগল বলেছে। আগ্রহীও হয়েছে অনেকে। এসব মানুষের মধ্য থেকে ১২ জনকে বেছে নেয় এইসম্যান।

দু’জন প্রোগ্রামার, একজন আর্টিস্ট ও লেখক, দু’জন মিউজিক কম্পোজার এবং একটি মার্কেটিং টিম রয়েছে তার কোম্পানিতে। এদের সবার বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে। টিমের সবাই বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নাগরিক।

তার বাবা এ নিয়োগ প্রক্রিয়ায় সর্বাত্মকভাবে সহযোগিতা করেছেন জানান কিশোর এ উদ্যোক্তা।

ভিডিও গেইমের প্রতি মানুষের ব্যাপক আগ্রহ দেখেছে এ কিশোর। এ প্রসঙ্গে সে বলে, আপনি দেখলে অবাক হয়ে যাবেন, কি পরিমাণ মানুষ কোনো পারিশ্রমিক ছাড়াই ভিডিও গেইমিংয়ে কাজ করতে আগ্রহী হয়ে উঠেছে।

বর্তমানে ডেভিড এইসম্যানের প্রতিষ্ঠান একটি সিমুয়েলটর (কাল্পনিক চরিত্র নিয়ে বানানো) গেইম তৈরির কাজ করছে।

মিরকা নামের গেইমটির একটি অন্যতম চরিত্রে আছে লিজা নামের একটি মেয়ে। সে একটি গহীন অরণ্যে তার হারিয়ে যাওয়া বন্ধুকে খুঁজে বেড়ায়। এক সময় সে বনের ভেতরে কিছু মানুষের সন্ধান পায়, যারা সেখানেই বসবাস করে।

লিজা এসব মানুষের সঙ্গে বেশ সময় ব্যয় করে, তাদের বিভিন্ন বিপদে-আপদে সহযোগিতা করে এবং সেই জঙ্গল থেকে তাদের বের করে নিয়ে আসার পরিকল্পনা করে।

লিজা সম্পর্কে ডেভিড এইসম্যান বলে, বেশিরভাগ ভিডিও গেইমে মেয়েদের যৌন আকর্ষণ ফুটিয়ে তোলা হয়। কিন্তু আমি চেয়েছি এই ধারণা থেকে বেরিয়ে তার চরিত্রটিকে বেশি প্রাধান্য দিতে। আর এই চরিত্রটির মধ্যে মেয়েদের শ্রদ্ধারও একটা বিষয় রয়েছে।

ডেভিড এইসম্যান চায়, তার প্রতিষ্ঠানটিকে গেইমিং ইন্ডাস্ট্রিতে প্রতিষ্ঠিত করতে। এজন্য তার টিম নিয়ে নিরলস কাজ করে যাচ্ছে এই ক্ষুদে সিইও।

বিজনেস ইনসাইডার অবলম্বনে

আরও পড়ুন:

*

*

Related posts/