চলচ্চিত্রে ইন্টেলের কোড !

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এলিসিয়াম নামের সায়েন্স ফিকশন চলচ্ত্রিটি ২০১৩ সালে মুক্তি পায়। অনেকের পছন্দের তালিকায় ছিল এটি। সেখানে এক স্পেস স্টেশনের সিস্টেম রিস্টার্ট দেওয়ার জন্য একটি কম্পিউটার কোড ব্যবহার করা হয়। এ কোড আসলে ইন্টেল প্রসেসরের ম্যানুয়াল থেকে কপি করা বলে সম্প্রতি এক ব্লগে ফাঁস করেছেন ব্রিটিশ প্রোগ্রামার জন গ্রাহাম- কামিং।

মজার এখানেই শেষ না। আয়রনম্যান সিনেমায় তার ডিসপ্লেতে যেসব ‘জটিল’ কোড ভেসে উঠে, তা সাধারণ লেগো বা খেলনা কম্পিউটারের কোড!

intel code movie_techshohor

এ ব্যাপারে গ্রাহাম-কামিং ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসিকে বলেন, ‘আমি এলিসিয়াম দেখেছি। তাদের যে কোনো একটি প্রোগ্রাম দরকার ছিল।’ ইন্টেল প্রসেসরের জন্য ব্যবহৃত অ্যাসেম্বলি কোডের পাশাপাশি উইকিপিডিয়া ও বিভিন্ন সাইট থেকেও কোড কপি করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, ‘আমি দেখামাত্র এটি চিনতে পেরেছি কারণ আমি একজন প্রোগ্রামার। আমি এটি নিয়ে টুইট করার পর পাঁচশোরও বেশি রিটুইট হয়েছে। তখন আমি এটি নিয়ে টুম্বলার ব্লগে লিখি।’

২০০১ সালের সোর্ডফিশ নামে একটি চলচ্চিত্রের কথাও বলেন তিনি। এতে ব্যবহার করা কোডটি যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তা হ্যাক করতে আশির দশকে ব্যবহার করা হয়েছিল।

তবে বিবিসির বিখ্যাত টিভি সিরিজ ডক্টর হুতে ব্যবহৃত কোড তার ভালো লাগেনি বলে জানান। সেখানে সরাসরি উইকিপিডিয়া থেকে আলোর তরঙ্গ মাপার কোড কপি-পেস্ট করা হয়েছে।

২০১০ সালে তৈরি ফেসবুককে নিয়ে ছবি দ্য সোশ্যাল নেটওয়ার্কে সত্যিকারের জটিল কোড ব্যবহার করা হয়েছিল বলে জানান তিনি। পার্ল প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজে সেখানে কোড লেখা হয়েছিল।

গ্রাহাম-কামিং মনে করেন, যে কোড ব্যবহারই করা হোক না কেন, তা সঠিক হলে ক্ষতি নেই। তবে ভুল কোড ব্যবহার না করাই ভালো।

– বিবিসি প্রতিবেদন থেকে শাহরিয়ার হৃদয়

Related posts

*

*

Top