ইউটিউবে তারেকের ভোট বর্জনের ডাক

আল আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দশম সংসদ নির্বাচনে ভোট বর্জনের আহবান জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। ইউটিউব ও ফেইসবুক পেইজে প্রচারিত এক ভিডিও বার্তায় তিনি এ আহবান জানান।

রোববার দশম সংসদ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ করা হবে। এতে প্রধান বিরোধী দল অংশ নিচ্ছে না। ইতোমধ্যে এ নির্বাচনে ১৫৩ জন প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নির্বাচিত হয়েছেন। দেশের পাঁচ জেলায় কোনো ভোট হচ্ছে না।

বেশ কয়েক বছর থেকে যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার বড় ছেলে তারেক রহমানের এ ভিডিওটির শিরোনামে ৪ জানুয়ারি থাকলেও তা ৩ জানুয়ারি ইউটিউবে প্রকাশ করা হয়। ‘তারেক রহমান লন্ডন স্পীচ’ নামে এ বার্তাটি তার একটি ফেইসবুক পেইজেও প্রকাশ করা হয়েছে।

বার্তায় যে যকোন মূল্যে নির্বাচনকে প্রতিহত করতে কারো নির্দেশনার অপেক্ষায় না থেকে সর্বশক্তি দিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়তে এবং নির্বাচন বর্জনের আহবান জানান তারেক।

ভিডিওতে তারেক বলেন, “আজও শারীরিক অসুস্থতার জন্য আমি সশরীরে আপনাদের মাঝে উপস্থিত নেই। তবে আমি প্রতিটি মুহূর্তে নিজেকে আপনাদের মাঝেই অনুভব করি। আপনাদের ওপর আসা আঘাত, আপনাদের ত্যাগ, আপনাদের সংগ্রাম আমাকে সর্বদা আচ্ছন্ন করে রাখে।”

তারেক বলেন, “আপনাদের প্রতি আমি আহ্বান জানাই- এখন সর্বশক্তি দিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ার সময়। এখন থেকে লক্ষ্য একটাই- সকল ক্ষুদ্র বিভাজন ভুলে স্বৈরাচারী সরকার আর তার প্রহসনের নির্বাচনকে যে কোনো মূল্যে প্রতিহত করতে হবে। আওয়ামী লীগের সুবিধাভোগী আর অন্ধ সমর্থক ছাড়া প্রতিটি বাংলাদেশি নারী ও পুরুষ আমাদের সঙ্গে রয়েছেন।”

সংবিধান কোনো ঐশী বানী নয় উল্লেখ করে বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, আজ যে শেখ হাসিনা নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান হতে চাচ্ছেন, তিনি কেবল অনিরপক্ষই নন, খোদ আওয়ামী লীগের প্রধান। কোনো ভরসায়, কিসের ভিত্তিতে-বিএনপি বা অন্য যে কোনো দল শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচনে যাবে?”

বিএনপির চলমান আন্দোলনকে ‘গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের’ সংগ্রাম অভিহিত করে তারেক বলেন, “দেশবাসীকে সাথে নিয়ে গণতন্ত্রকে সমুন্নত রাখতে আমাদের যে আন্দোলন, তাতে অনেক নেতা-কর্মী এবং সাধারণ মানুষ প্রাণ দিয়েছেন। তাদের উৎসর্গের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য হলেও আমাদেরকে ঘরে-ঘরে, গ্রামে-গ্রামে, শহরে-শহরে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে।”

নির্বাচন স্থগিতের জন্য আওয়ামী লীগের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তারেক বলেন, “শেখ হাসিনা বলেছিলেন যে তিনি সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করবেন। তিনি প্রধানমন্ত্রিত্ব নয়, শান্তি চান। আর সেই শান্তির পূর্বশর্ত দেশের মানুষের দাবির প্রতি সম্মান জানিয়ে পাতানো নির্বাচনের খেলা বন্ধ করা।”

“ভেবে দেখুন, দেশের সার্বভৌমত্বকে বিসর্জন দিয়ে, পদে-পদে আমাদের প্রাণপ্রিয় ইসলাম ও ধর্মীয় সম্প্রীতিকে রক্তাক্ত করে, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মত গণদাবিকে ধূলিস্যাৎ করে, এমন লজ্জাজনক নির্বাচন কি একটি তথাকথিত গণতান্ত্রিক দলকে মানায়? এই নির্বাচন দিয়ে মানুষের ঘৃণা-অভিশাপ ছাড়া আপনাদের আর কী অর্জন হবে?”

২৩ মিনিটের এ ভিডিওটিতে তারেক রহমানের ভাবনায় দেশের বর্তমান পরিস্থিতি, আওয়ামী লীগ সরকারেরর সমালোচনাসহ মূল বক্তব্য ছিল নির্বাচন প্রতিহত করার আহবান।

Related posts

*

*

Top