Maintance

ফ্রিল্যান্সিং আয়ের অগ্রগতিতে চতুর্থ অবস্থানে বাংলাদেশ

প্রকাশঃ ৬:০৬ অপরাহ্ন, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৫ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৩:০৯ অপরাহ্ন, অক্টোবর ১, ২০১৫

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সারাবিশ্বের ফ্রিল্যান্সারদের আয়ের দিক থেকে এখনো সপ্তম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। তবে এই আয়ের অগ্রগতির দিক বিবেচনায় চতুর্থ অবস্থানে উঠে এসেছে দেশ।

২০১৪ সালে ফ্রিল্যান্সিং থেকে আয়ের হিসাবে শীর্ষ ১০ দেশের অগ্রগতির এক তালিকা প্রকাশ করেছে ফ্রিল্যান্সারদের জনপ্রিয় মার্কেটপ্লেস আপওয়ার্ক। এতে বাংলাদেশের ওই অবস্থান দেখানো হয়েছে।

তালিকা অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্রের অগ্রগতি এখনো সবার উপরে। এর পরে আছে ফিলিপাইন ও রাশিয়া। এছাড়াও অগ্রগতিতে বাংলাদেশের পরের অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাজ্য, রোমানিয়া, ভারত, ইউক্রেন, পাকিস্তান ও কানাডা।

freelancing

২০১৪ সালে ফ্রিল্যান্সাররা মোট আয় করেছে ৯৪১ মিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি। এখানে বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সারদের আয় হলো ২৬ দশমিক ৭ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। তবে ২০১০ থেকে ২০১৫ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত ফ্রিল্যান্সিংয়ে বাংলাদেশের মোট আয় ছিল ৭২ দশমিক ৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

গত বছর থেকে এই আয় খুব দ্রুত বাড়ছে বলে জানান আপওয়ার্কের বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ম্যানেজার সাইদুর মামুন খান।

তার দেওয়া তথ্য মতে, ২০১৪ সালে মার্কেটপ্লেসটিতে নিবন্ধিত ফ্রিল্যান্সারের সংখ্যা প্রায় ৯৭ লাখ। এর মধ্যে বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সার রয়েছে চার লাখ ৭৮ হাজার।

তিনি বলেন, ফ্রিল্যান্সিং আয়ে বাংলাদেশ এখনো সপ্তম স্থানে। কিন্তু খুব শিগগরই এই অবস্থানের আরও উন্নতি হবে। তরুণরা আরও বেশি করে এই খাতে কাজ করতে আগ্রহী হচ্ছে। সঠিকভাবে তাদের পথ দেখাতে পারলেই দেশ শীর্ষস্থান ধরে ফেলবে।

২০১৪ সালে কাজের ধরনের উপর নির্ভর করে অ্যাডমিন সাপোর্ট ও ডিজাইনে ৪.৮০৬ মিলিয়ন করে, প্রযুক্তিতে ৯.৮৭৯ মিলিয়ন, সেলস অ্যান্ড মার্কেটিংয়ে ৫.৮৭৪ মিলিয়ন, লেখা ও অনুবাদে ০.৮০২ মিলিয়ন এবং ফিন্যান্স অ্যান্ড লিগ্যালে ০.৫৩৪ মিলিয়ন ডলার আয় করেছে বাংলাদেশি ফ্রিল্যান্সাররা।

দেশে ইতোমধ্যেই ফ্রিল্যান্সার তৈরি ও উন্নয়নে কাজ করছে আপওয়ার্ক এবং সরকারের আইসিটি বিভাগ। ২০১৮ সাল নাগাদ ফ্রিল্যান্সিং থেকে আয় এক বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করতে সরকার ও আইসিটি বিভাগ দেশে প্রশিক্ষণ দিয়ে ফ্রিল্যান্সার তৈরির কাজ করছে।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/