টুইটার ব্যবহারে শীর্ষে সৌদি আরব!

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : শুনে হয়ত কিছুটা খটকা লাগবে। তবে পরিসংখ্যান বলছে এটাই সত্যি। ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর মধ্যে টুইটারে সবেচেয়ে বেশি সক্রিয় দেশ সৌদি আরব।

সম্প্রতি জরিপ প্রতিষ্ঠান পিয়াররিচের এক পরিসংখ্যানে এ বিস্ময় জাগানো তথ্য প্রকাশ পেয়েছে। এতে দেখা গেছে, দেশটির মাসিক ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর মধ্যে এক তৃতীয়াংশ টুইটার ব্যবহার করছে।

twitter user_techshohor

সর্বশেষ এ তথ্যে দেখা গেছে, টুইটার ব্যবহারে শীর্ষ ১০ দেশের মধ্যে সবচেয়ে বেশি এগিয়ে সৌদি আরব। আর ১০ নম্বরে রয়েছে কলম্বিয়া। অন্যদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার ও মাইক্রোব্লগিং প্লাটফর্ম হিসাবে বিবেচিত যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান ৮ নম্বরে।

জরিপে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুইটারে একাউন্ট রয়েছে এমন ব্যবহারকারীর চেয়ে সক্রিয় ব্যবহারকারীর তথ্য বিশ্লেষণ করা হয়েছে। টুইটারে একাউন্ট থাকলেও ৪০ শতাংশ মাসে কখনই টুইট করেন না।

সবশের্ষ অক্টোবর মাসের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, টুইটারের নিবন্ধিত সদস্য এখন ৯০ কোটি ৪০ লাখ। এর মধ্যে প্রতিদিন সক্রিয় ব্যবহারকারী সাড়ে চার কোটি। আর প্রতি মাসে সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২৩ কোটি ২০ লাখ।

পিয়াররিচের সক্রিয় ব্যবহারকারীর ওপর ভিত্তি করে চালানো জরিপে দেখা যায়, প্রথম অবস্থানে থাকা সৌদি আরবে টুইটার ব্যবহারকারী ৩৩ শতাংশ, দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ইন্দোনিশিয়ায় ১৯ শতাংশ। তৃতীয় ও চতুর্থ অবস্থানে থাকা স্পেন ও  ভেনিজুয়েলার ১৪ শতাংশ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ অবস্থানে থাকা আর্জেনটিনা ও যুক্তরাজ্যের ১২ শতাংশ, সপ্তম, অষ্টম ও নবম অবস্থানে থাকা নেদারল্যান্ড, যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানের ব্যবহারকারী ১১ শতাংশ এবং দশক অবস্থানে থাকা কলম্বিয়ার ব্যবহারকারী ১০ শতাংশ।

সামাজিক আন্ত:যোগাযোগ ব্যবস্থা ও মাইক্রোব্লগিং নেটওয়ার্ক টুইটারে একজন ব্যবহারকারী সর্বোচ্চ ১৪০ অক্ষরের বার্তা আদান-প্রদান ও প্রকাশ করতে পারেন।
২০০৬ সালের মার্চ মাসে টুইটারের যাত্রা শুরু হয়। এরপর তা বিশ্বজুড়ে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। এটি অপর জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকের প্রতিন্দন্দ্বীও হয়ে উঠেছে।

–  ম্যাসেবল প্রতিবেদন থেকে তুসিন আহমেদ

Related posts

*

*

Top