Maintance

লগ আউট, অ্যাকাউন্ট না থাকলেও ডেটা নেয় ফেইসবুক

প্রকাশঃ ৪:১১ অপরাহ্ন, এপ্রিল ১৭, ২০১৮ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৭:০৮ অপরাহ্ন, এপ্রিল ১৭, ২০১৮

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : গত সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে সিনেটরদের মুখোমুখি হতে হয়েছিল ফেইসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গকে।

শুনানিতে জাকারবার্গকে এক সিনেটর প্রশ্ন করেন, ফেইসবুক কি লগ আউট অবস্থায় ডিভাইস থেকে ডেটা নেয়?
উত্তরে জাকারবার্গ শুধু জানিয়েছিলেন, ডিভাইসের সঙ্গে ফেইসবুক, ইনস্টাগ্রাম ও অন্যান্য অ্যাপ লিঙ্ক করা থাকে। এর বাইরে তিনি বিষয়টি একেবারে পরিষ্কার করে বলেননি তখন।

তবে আগের সপ্তাহের সেই প্রশ্নের উত্তর এবার পরিষ্কার করে দিয়েছে ফেইসবুক। মঙ্গলবার ফেইসবুক জানায়, ওয়েবসাইট বা অ্যাপে লগ আউট থাকা অবস্থাতেও ব্যবহারকারীর ডেটা নেয় মাধ্যমটি।

zukerbarg-techshohor

ফেইসবুকের সঙ্গে অনেক অ্যাপ এবং সার্ভিস যুক্ত। যেখানে বিভিন্ন কনটেন্ট সেগুলোর সঙ্গে খুবই সম্পর্কিত বলে ব্যাখ্যা করেছে ফেইসবুক।

ফেইসবুকের পণ্য ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডেভিড বাসের এক ব্লগ পোস্টে জানিয়েছেন, যেসব অ্যাপ এবং ওয়েবসাইট আমাদের সার্ভিস ব্যবহার করে, যেমন লাইক বাটন বা ফেইসবুক অ্যানালিটিক্স আমাদের কাছে তথ্য পাঠায় যে, ওই কনটেন্টটি বা বিজ্ঞাপন খুব ভালো সাড়া পাচ্ছে।

আসলে সংগ্রহ করা তথ্যগুলো পুনরায় ওই ওয়েবসাইটগুলোকে সহায়তা করার জন্য বিশ্লেষণ করে পাঠায়। তথ্যগুলোতে দেখানো হয়, তাদের সার্ভিস কত মানুষ ব্যবহার করছে। এর ফলে বিজ্ঞাপনদাতা প্রতিষ্ঠানটি সঠিক একটা হিসাব বুঝতে পারে।

যখন কেউ কোনো সাইট বা অ্যাপ ব্যবহার করেন বা আমাদের সার্ভিস ব্যবহার করেন আমরা তাদের তথ্যগুলো নিই। সেটা ফেইসবুক লগ আউট করা থাক কিংবা ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট না থাক। এটা করার কারণে অন্য ওবসাইটগুলো জানতে পারে না যে কে ফেইসবুক ব্যবহার করছে আর কে করছেন না, বলেন বাসের।

অনেক কোম্পানিই ফেইসবুক লাইকের মতো এমন সার্ভিস ব্যবহার করে এবং সেই ওয়েবসাইট বা অ্যাপ থেকে তথ্য নেয়।

টুইটার, পিনটারেস্ট এবং লিকডইনের মতো যেসব মাধ্যম আছে সেখানেও লাইক এবং শেয়ারের মতো বাটন রয়েছে, যেখান থেকে ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন কিছু শেয়ার করেন। গুগলের একটি জনপ্রিয় অ্যানালিটিক্স সার্ভিস রয়েছে। এমনকি অ্যামাজন, গুগল এবং টুইটার সবাই লগইন ফিচার অফার করে থাকে, যার মাধ্যমে তথ্য নেয় বলে ফেইসবুক বলছে।

Symphony 2018

যখন কেউ একটি সাইটে ভিজিট করেন তখন সেই ব্রাউজার সার্ভারে একটি রিকোয়েস্ট পাঠায়। সেখানে সেই আইপি ঠিকানা চলে যায়। আর এর মাধ্যমে ইন্টারনেট থেকে কোথায় সেই কনটেন্ট পাঠানো হচ্ছে সেটা ওয়েবসাইটটি জেনে যায়।

ওয়েবসাইটটি ব্রাউজার এবং অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারীর কাছ থেকে তথ্য সংগ্রহ করে। একারণে দেখা যায়, সেখানে অনেক ব্রাউজার এবং ডিভাইস একই ফিচার সমর্থন করে না বলে জানান বাসের।

ফেইসবুক ব্যাখ্যা করেছে, ওই ব্রাউজারে অনেক কুকিজ থেকে যায় যেগুলো অনেক আগে ব্যবহার করা হয়েছে। সেগুলো থেকেও তথ্য নেয়। এটা অনেকটা শপিং কার্টের মতো।

বাসের বলেন, তাই কেউ যদি একটি ওয়েবসাইট ব্যবহার করে আমাদের সার্ভিস নেন, তাহলে আপনার সেই ব্রাউজার একই ধরনের ইনফরমেশন ফেইসবুকে দেবে, যেটা ওই ওয়েবসাইট নেয়। আমরা এমনও তথ্য নিই যে, কে কোন ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ ব্যবহার করছে। কারণ এটি আমাদের জন্য প্রয়োজন। ব্যব্হারকারীর কখন কোন টুলটি দরকার তা জানার জন্যই প্রয়োজন।

অন্য ওয়েবসাইট থেকে নেওয়া ইনফরমেশনগুলো তিনটি উপায়ে ব্যবহার করে ফেইসবুক।

আমাদের সার্ভিসগুলো তাদের সাইটে বা অ্যাপের মাধ্যমে বিতরণ করে, ফেইসবুকের নিরাপত্তা জোরদার করতে এবং আমাদের নিজস্ব পণ্য এবং সেবা তৈরি করতে এগুলো ব্যবহার করা হয় বলে বলেন বাসের।

বাসের বলেন, আমরা যেসব তথ্য বিভিন্ন ওয়েবসাইট এবং অ্যাপ থেকে নিই সেগুলোর প্রধানত ব্যবহার করা হয় আমাদের নিরাপত্তা আরো উন্নত করতে।

এর আগে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা নামের একটি রাজনৈতিক কনসালটেন্সি ফার্ম ফেইসবুক থেকে অন্তত আট কোটি ৭০ লাখ ব্যবহারকারীর ডেটা হাতিয়ে নেওয়ার ঘটনা ফাঁস হয়। তারপর যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেস জাকারবার্গকে তলব করে।

সেখানে জাকারবার্গ বলেন, তারা ডেটা বিক্রি করে না। বরং সেই ডেটা থেকে ব্যবহারকারীদের জন্য নতুন অভিজ্ঞতায় মাধ্যমটি সজ্জিত করার এবং সুবিধা বৃদ্ধির কাজে ব্যবহার করেন।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/