Maintance

হত্যাকাণ্ডের সূত্র মিললো অ্যাপল ওয়াচে

প্রকাশঃ ৩:১২ অপরাহ্ন, এপ্রিল ৪, ২০১৮ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৭:৩৬ অপরাহ্ন, এপ্রিল ৪, ২০১৮

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ২০১৬ সালে অস্ট্রেলিয়ায় একটি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। সেই হত্যাকাণ্ডের রহস্য বের হতে এক বছরের কিছু বেশি সময় লাগলো পুলিশের। যেখানে মূল ভূমিকা রেখেছে অ্যাপলের তৈরি স্মার্ট ওয়াচ।

সে বছর  ৫৭ বছর বয়সী মিরানা নিলসন নামের এক নারী হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। তবেসযখন তাকে হত্যা করা হয় তখন তিনি অ্যাপলের এই ঘড়িটি পরে ছিলেন।

অ্যাপেলের তৈরি ওই স্মার্ট ঘড়ি থেকেই পরে পাওয়া যায় বেশকিছু তথ্যপ্রমাণ, যা আদালতে হাজির করেছে পুলিশ।apple-watch-series-3-techshohor

তার পুত্রবধূ ক্যারোলিন নিলসন দাবি করেন, তার শাশুড়ি বাইরে থেকে ফেরার সময় একদল লোক তার পেছনে আসে। তাদের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটিও হয়। এরপর সেই লোকগুলো বাড়িতে ঢুকে তার হাতপা বেঁধে ফেলে।
তারাই তার শাশুড়ি মিরানাকে হত্যা করেছে বলে তিনি দাবি করেন।

কিন্তু অ্যাপল ওয়াচ থেকে পাওয়া তথ্যে জানা যাচ্ছে, বাইরে থেকে ঘরে প্রবেশ করার সময় মিরানার ওপর হামলা করেন ক্যারোলিন নিজেই। তার দাবির সময়ের অনেক আগেই মিরানাকে হত্যা করা হয়।

Symphony 2018

অ্যাডিলেডের ভ্যালি ভিউর একটি বাড়ির একটি লন্ড্রি রুম থেকে তার মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

অ্যাপলের স্মার্ট ঘড়িতে একজন ব্যক্তির চলাফেরা, শারীরিক অবস্থা, হার্ট বিটের তথ্য সংরক্ষণ হয়। কোন ব্যক্তি ঘুমিয়ে আছে নাকি অজ্ঞান হয়ে আছে, সেটাও এসব ঘড়ি বুঝতে পারে।

পুলিশ বলছে, ক্যারোলিন নিলসন যেসব দাবি করছেন, ঘড়ির তথ্যের সঙ্গে সেগুলো মিলছে না। যে সময়ে বাইরে লোকজনের সঙ্গে কথা কাটাকাটির দাবি করেছেন, তার অন্তত তিন ঘণ্টা আগেই মিরানা নিলসনের মৃত্যু হয়েছে।

স্মার্টওয়াচটিতে থাকা মানুষের চলাচল ট্র্যাক করার সেন্সর থেকে জানা যায় সন্ধ্যা ছয়টা ৬ টা ৩৮ থেকে তার শাশুড়ির হৃৎস্পন্দনের গতি কমতে থাকে। নিলসন আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে সজ্ঞা হারাতে শুরু করলে স্মার্টওয়াচটি তথ্য রেকর্ড করা শুরু করে। এরপর ৬ টা ৪৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

এসব তথ্যের ভিত্তিতে ক্যারোলিন নিলসনের জামিনের আবেদন নাকচ করে দিয়েছে আদালত। জুন মাসে তার বিচার শুরু হবে।

বিবিসি বাংলা থেকে

*

*

Related posts/