Maintance

খালাস পেলেও নজরদারিতে থাকবেন স্যামসাং প্রধান

প্রকাশঃ ৫:১৫ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৮ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৫:১৫ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৮

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্যামসাং গ্রুপের প্রধান এবং প্রতিষ্ঠানটির উত্তরাধীকারী লি জে ইয়ংকে জেল থেকে মুক্তি দিয়েছে আদালত। তবে আগামী চার বছর তাকে নজরদারিতে রাখা হবে।

প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে করা আপিলের শুনানি শেষে দেশটির আদালত লি-কে খালাস করে দেওয়ার রায় দেয়। দক্ষিণ কোরিয়ার ওই আদালত সোমবার জে লি ইয়ং এর কারাদণ্ডের রায় বাতিল করে। এক বছর সাজা খাটার পর তাকে খালাস দিলো আদালত।

তবে রাজধানী সিউলের উচ্চ আদালত লি’র আগের রায়ের সাজা অর্ধেক করে দিয়ে আড়াই বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে। সেই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে থাকা ঘুষ আর অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ বাতিল করা হয়েছে। নতুন এই রায়ের ফলে ইয়ং-কে এখন আর কারাগারে থাকতে হচ্ছে না, তবে তিনি চার বছর নজরদারিতে থাকবেন।

এর মানে হচ্ছে এই চার বছর তাকে পর্যবেক্ষণের মধ্যে রাখা হবে, যদি তিনি এর মধ্যে কোনো শর্ত লঙ্ঘন করেন তবেই ওই সাজা কার্যকর হবে।

এর আগে ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে বিশ্বের অন্যতম বড় ইলেক্ট্রনিক্স পণ্যের নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্যামসাং ৪৯ বছর বয়সী লি-কে কারাদণ্ড দেয়।

ইয়ং লির বিরুদ্ধে দেশটির সাবেক প্রেসিডেন্টকে নিয়ম বহির্ভূতভাবে অর্থ দিয়ে সহায়তা করার অভিযোগ আনা হয়েছিল।

বিশ্বের বৃহত্তম স্মার্টফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্যামসাং ইলেক্ট্রনিকসের ভাইস চেয়ারম্যান লির বিরুদ্ধে গত ফেব্রুয়ারিতে দুর্নীতিসহ বেশ কয়েকটি অভিযোগ আনুষ্ঠানিকভাবে নেয় আদালত।

ঘটনার তদন্তের অংশ হিসেবে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি লিকে গ্রেপ্তার করা হয়।এর আগে জে ইয়ং লি’র বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাৎ, ঘুষ ও দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয়েছিল ২০১৬ সালে।

তবে সোমবার আদালতের দেওয়া ওই রায়ে লি’র বিরুদ্ধে যে ঘুষ, দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছিল সেগুলো নাকোচ করে দেয়।

২০১৬ সালে দেশটির অভিসংশিত প্রেসিডেন্ট পার্ক জিউন হাই এর আটক বন্ধু চো সুন সিলের একটি ফাউন্ডেশন ও কোম্পানিকে দুটি প্রতিষ্ঠানের একীভূতকরণে ন্যাশনাল পেনশন ফান্ডের সমর্থন পাওয়ার জন্য প্রায় ২৫ দশমিক ৪৬ বিলিয়ন ডলার ঘুষ দেয়ার অভিযোগ করা হয় স্যামসাংয়ের বিরুদ্ধে।

রয়টার্স অবলম্বনে ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/