Maintance

সিলেট ইলেক্ট্রনিক্স সিটিতে ৫০ হাজার চাকরি

প্রকাশঃ ৬:০৯ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৮ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১০:৫৪ পূর্বাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৮

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশের প্রথম ইলেক্ট্রনিক্স সিটি হিসেবে সিলেটের কোম্পানীগঞ্জে হাইটেক পার্কের আইটি বিজনেস সেন্টারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে।

আইটি বিজনেস সেন্টারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ইমরান আহমদ।

পুরো অবকাঠামো নির্মাণ শেষ হলে এই ইলেক্ট্রনিক্স সিটির মাধ্যমে জ্ঞানভিত্তিক উন্নয়নের পর অন্তত ৫০ হাজার তরুণ-তরণীর চাকরি হবে বলে জানায় বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ।

রোববার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে পলক বলেন, এই পবিত্র ভূমিতে তথ্যপ্রযুক্তির বিপ্লব ঘটাতে চাই আমরা। এজন্য এমন ইলেক্ট্রনিক সিটি হিসেবে হাইটেক পার্কের যাত্রা হচ্ছে। ইতোমধ্যে অবকাঠামো উন্নয়েনের কাজ শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন, এই হাইটেক পার্কে দেশি-বিদেশী প্রতিষ্ঠানগুলোও আসবে, বিনিয়োগ করবে। আর এর মাধ্যমে অন্তত ৫০ হাজার তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে। যা দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে তথ্যপ্রযুক্তির বিস্তারসহ আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সহায়ক ভূমিকা রাখবে।

আইটি বিজনেস সেন্টারের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের পাশাপাশি একটি ব্রিজ নির্মাণ কাজেরও ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন তারা।

ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে জাতীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নের গতি ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে বৃহত্তর সিলেট অঞ্চলে প্রযুক্তিভিত্তিক হাইটেক শিল্পের বিকাশ, মৌলিক অবকাঠামো তৈরির মাধ্যমে ইলেকট্রনিক্স সিটি তথা-হার্ডওয়্যার শিল্প প্রতিষ্ঠা করা, আইটি এবং আইটিইএস শিল্প প্রতিষ্ঠা  করতে একটি হাইটেক পার্ক গড়ার উদ্যোগ নেয়।

যা এখন তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের আওতাধীন বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।

প্রকল্পটির উপ-প্রকল্প পরিচালক মোহাম্মদ আতিকুল ইসলাম টেকশহর ডটকমকে জানান, সিলেট ইলেক্ট্রনিক্স সিটির কাজ শেষ হলে এর মাধ্যমে ৫০ হাজার জনের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে। হাইটেক পার্কটির উন্নয়ন কাজ অনেক দ্রুততার সঙ্গেই হচ্ছে। আশা করা হচ্ছে নির্ধারিত সময়ে এখানে বিনিয়োগকারীরা তাদের কাজ শুরু করতে পারবেন।

২০১৭ সালের ৮ মার্চ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) প্রকল্পটি অনুমোদন করে সরকার।

সিলেটের প্রকল্পটি প্রায় ১৬২.৮৩ একর জমির ওপর নির্মাণ করা হচ্ছে। ইতোমধ্যেই প্রকল্পের ভূমি উন্নয়ন, দৃষ্টিনন্দন ডিজাইনের প্রায় ৩১ হাজার বর্গফুট বিশিষ্ট আইটি বিজনেস সেন্টার, সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ প্রধান সড়ক হতে প্রকল্পে প্রবেশের জন্য বিদ্যমান খালের উপর একটি ক্যাবল ব্রিজ, অভ্যন্তরীণ রাস্তা, গ্যাস লাইন স্থাপন এবং সীমানা প্রাচীর নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে।

আইটি বিজনেস সেন্টারটির নির্মাণ কাজ শেষে আগ্রহী বিভিন্ন বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানকে বরাদ্দ দেওয়া হবে। এ ছাড়াও এই ইলেকট্রনিক্স সিটিটি সফলভাবে প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বিভিন্ন সহায়ক অবকাঠামো উচ্চগতি সম্পন্ন ইন্টারনেট সংযোগ, প্রধান রাস্তা, স্ট্রিট লাইটিং, ইউলিটিস ভবন, গভীর নলকূপ ও পানি সরবরাহ ব্যবস্থা, ড্রেন এবং ৩৩/১১ কেভিএ বৈদ্যুতিক সাব-স্টেশনসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজের উপাদানগুলো নির্মাণের পরিকল্পনাধীন রয়েছে।

প্রকল্পটির কাজ শুরু হয়েছে ২০১৬ সালের জানুয়ারি থেকে, যা শেষ হবে ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে।

আইটি বিজনেস সেন্টারের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম, সিলেট জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাসহ আরও অনেকেই।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

Related posts/