HP Banner
Maintance

যে আইফোনগুলো মেরামত করা কঠিন

প্রকাশঃ ফেব্রুয়ারি ২, ২০১৮, ০২:২০ - আপডেটঃ ফেব্রুয়ারি ১, ২০১৮, ০৫:৫৯

iphone-5-techshohor
Symphony 2018

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যতো দিন যাচ্ছে স্মার্টফোন দিয়ে কাজ করার পরিধি  ততোই বাড়ছে। কয়েক বছর আগেও ফিচার ফোনগুলো ৮-১০ বছর বয়সীরাও খুলতে পারতো। কিন্তু যতো দিন যাচ্ছে ফোনের ভেতরের যন্ত্রাংশ খোলা ততোই কঠিন হয়ে যাচ্ছে।

বিশেষ করে আইফোনের যন্ত্রাংশ খোলা তুলনামূলকভাবে বেশি কঠিন। কারণ আইফোন খুলতে যাওয়া মানেই ওয়ারেন্টি পাওয়ার শর্ত লঙ্ঘন করা। আর কেউ যদি ওয়ারেন্টি না থাকায় সাহস করে খুলতেও যায় মাঝপথেই তাকে থেমে যেতে হবে। কারণ আইফোন খুলতে বিশেষায়িত কিছু যন্ত্র লাগে।

প্রযুক্তি পণ্য মেরামতের নির্দেশনা দেওয়ার ওয়েবসাইট আইফিক্সইট বেশ কয়েক বছর ধরেই আইফোন নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা চালিয়ে আসছে। যেসব আইফোন মেরামত করা বেশি কঠিন সেগুলোর রেটিং দিয়েছে ওয়েবসাইটটি। মেরামতের ক্ষেত্রে কোন আইফোনের রেটিং কতো তা নিয়েই থাকছে আজকের আয়োজন।

আইফোন (২০০৭ )

অ্যাপলের প্রথম আইফোনটির বয়সে বেশি হলেও এই ফোন খোলা সবচেয়ে কঠিন। এতে রয়েছে স্ট্যান্ডার্ড ফিলিপস স্ক্র ও লুকানো কিছু ক্লিপ। এ কারণে কোনো রকম ক্ষতি ছাড়া ফোনটি খোলা প্রায় অসম্ভব। এর ব্যাটারি বদলানোও বেশ জটিল ব্যাপার। এর রেটিং ১০ এর মধ্যে ২।

আইফোন ৪ (২০১০)

প্রথম আইফোনের চেয়ে আইফোন ৪ কিছুটা হলেও মেরামতযোগ্য। কারণ এর স্ক্রগুলো কিছুটা সহজে খোলা যায়। তবে এর ক্যামেরা বদল করা দুঃসাধ্য একটি কাজ। তাই এর রেটিং দেওয়া হয়েছে ৬।

iphone-4s-techshohor

আইফোন ৪এস (২০১৭)

সহজে খোলার জন্য এতে স্ক্র ও অল্প পরিমাণে আঠালো পদার্থ আছে। যদিও এর পেছনের অংশটি খালি হাতে খোলার কোনো উপায় নেই। এটি খুলতে প্রয়োজন হবে পেন্টালোব ড্রাইভার। আরেকটি সমস্যা হলো ফোনটির ফ্রন্ট গ্লাসের সঙ্গে এর এলসিডি ডিসপ্লের প্যানেলটা যুক্ত করা। আইফিক্সইট ওয়েবসাইট প্রদত্ত রেটিং ৬।

আইফোন ৫সি ও ৫এস (২০১৩)

দুটি ফোনেরই ব্যাটারি ফোনের সঙ্গে আটকানো। ব্যাটারি খুলতে হলে দরকার পেন্টালোব ড্রাইভার। ফোন দুটির রেটিংও ৭।

আইফোন এসই (২০১৬)

মূলত টাচ আইডি থাকার ফলেই আইফোন এসই খোলা কঠিন। খোলার সময় কৌশল অবলম্বন করতে হলেও এর ব্যাটারিটি সহজেই খোলা যায়। এই মডেলটিরও রেটিং দেওয়া হয়েছে ৬।

iphone-8-8plus-techshohor

আইফোন ৮,৮ প্লাস ও ১০ (২০১৭)

তিনটি ফোনেরই রেটিং দেওয়া হয়েছে ৬ করে। আইফোন ৮ ও ৮ প্লাসের ব্যাক প্যানেলে গ্লাস রয়েছে। তাই একবার ভেঙ্গে গেলে ফোনগুলো মেরাতম করা কঠিন। আইফোন ১০ মেরামত করে সারানোও বেশ কঠিন ব্যাপার।

আইফোন ৩জি (২০০৮)

এই ফোনের শুধু একটাই সমস্যা। এর ব্যাটারি লজিক বোর্ডের ভেতরে থাকায় তা সহজে বদলানো যায় না। আইফিক্সইট ওয়েবসাইট এর রেটিং দিয়েছে ৭।

আইফোন ৩জিএস

এই ফোনটিরও ব্যাটারি বদল করা একটি বিশাল সমস্যা। তবে এর এলসিডি গ্লাস ও ফ্রন্ট গ্লাস সহজেই বদল করা যায়। এই ফোনেরও রেটিং ৭।

আইফোন ৫ (২০১২)

এই ফোনের ব্যাটারি সরানো যায়। তবে ফোনটি খুলতে হলে প্রয়োজন পেন্টালোব ড্রাইভার।

iphone-6-6-plus-techshohor

আইফোন ৬ ও ৬ প্লাস

এই দুটি মডেলের সঙ্গে রিটেইল শপগুলোতে বা ক্রেতাদেরকে কোনো রিপেয়ার ম্যানুয়াল দেওয়া হয় না। এটি খোলা বা রিয়েপার করা দুটাই কঠিন।

আইফোন ৭ ও ৭ প্লাস

আইফোন দুটি খুলতে চারটি ভিন্ন ধরনের ড্রাইভারের প্রয়োজন। তবে এর ব্যাটারি খোলা বেশ সহজ। আইফিক্সইট ওয়েবসাইট প্রদত্ত এর রেটিং ৭।

গ্যাজেটস নাউ অবলম্বনে আনিকা জীনাত

*

*

সর্বাধিক পঠিত