ইষ্টার্ন প্লাস-বিসিএস কম্পিউটার মেলা শেষ হয়েও হলো না শেষ

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ক্রেতা দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভিড় ও জমজমাট বিকিকিনির মধ্য দিয়ে বুধবার শেষ হয়েছে ‘ইষ্টার্ন প্লাস-বিসিএস কম্পিউটার ও মোবাইল মেলা’।

রাজধানীর শান্তিনগরে ইষ্টার্ন প্লাস শপিং কমপ্লেক্সে ৯ এপ্রিল শুরু হয়েছিল ৮ দিনের এই কম্পিউটার ও মোবাইলের জমকালো প্রদর্শনী। তবে মেলা সময় শেষ হলেও শেষ হচ্ছে না মেলায় নানা অফারগুলাে।

মেলার আকর্ষণীয় ছাড় ও উপহার ক্রেতা দর্শনার্থীরা উপভোগ করতে পারবেন ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত। মেলায় দেড় শতাধিক প্রতিষ্ঠান কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ট্যাবলেট পিসি, স্মার্ট ফোনসহ তথ্যপ্রযুক্তি ও মুঠোফোনের সর্বাধুনিক সংস্করণের পণ্য ও সেবা প্রদর্শন করছে।

04

এসব পণ্য ও সেবা কেনাকাটায় মেলা চলাকালীন সময়ে ছিল আকর্ষণীয় ছাড় ও নানা উপহার। সেই সঙ্গে প্রতিটি কেনাকাটাতেই ছিল ফ্রি কুপন। যাতে র‌্যাফল ড্র’তে প্রতিদিনই ক্রেতা-দর্শনার্থীরা পেয়েছেন ট্যাবলেট পিসি, স্মার্ট ফোন, স্পিকার, মডেম, পেন ড্রাইভসহ আকর্ষণীয় তথ্যপ্রযুক্তি ও মুঠোফোন পণ্য উপহার।

বুধবার শেষ দিন মেলায় দর্শনাথীর সংখ্যা ছিল তুলনামূলক কম। তবে অন্যান্য দিন ক্রেতা সংখ্যা আরও বেশি ছিল বলে জানায় বিভিন্ন দোকান মালিকরা।

ফুয়াদ নামে এক দোকান মালিক টেকশহরডটকমকে জানান, “মেলা উপলক্ষে লক্ষ্যমাত্রা যেমন ছিল ঠিক, তেমনি বিক্রি করতে পেরেছি আমরা। আশা করি পরের বছর এ মেলা আরও বেশি জমে উঠবে।”

পুরো মেলা প্রাঙ্গনে ছিল ফ্রি ওয়াই-ফাই। ফলে ক্রেতা দর্শনার্থীরা ইচ্ছেমত ব্যবহার করেছেন উচ্চগতির ইন্টারনেট। ইষ্টার্ন প্লাস-বিসিএস ল্যাপটপ বাজারে এ সুবিধা এখন থেকে সবসময়ই পাবেন ক্রেতা-দর্শনার্থীরা বলে জানান মার্কেট সমিতির কর্মকর্তারা।

মেলায় আয়োজকদের পক্ষ থেকে মিজানুর রহমান টেকশহরডটকমকে জানান, এবারের মেলা আয়োজনের মূল্য উদ্দেশ্য ছিল প্রচারণা। ঢাকা শহরে অনেক শান্তিনগরের এ বাজারের কথা জানেন না। তাদের জানানোই ছিল মূল্য লক্ষ্য। এ দিকে থেকে সফল হয়েছে আয়োজন। ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের ব্যাপক সাড়ার পাশাপাশি বিকিকিনিও ভাল হয়েছে।

আয়োজকরা জানান, মেলায় একদিন পর পর আয়োজন ছিল কুইজ প্রতিযোগিতার। এতে অংশ নিয়েও দর্শনার্থীরা জিতে নিয়েছেন তথ্যপ্রযুক্তির নানা দরকারি পণ্য। মেলার চতুর্থ দিনে আয়োজন করা হয়েছিল শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা। দুই গ্রুপে অর্ধশত শিক্ষার্থী এদিন মনের মাধুরি মিশিয়ে এঁকেছে স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ। মেলায় শিশুদের জন্য ছিল ফ্রি গেমিং জোন। রোমাঞ্চকর নানা খেলায় এ নিয়ে তাদের মধ্যে ছিল অনেক উচ্ছ্বাস।

*

*

Top