নেক্সট জেনারেশন গেইম ব্যাটলফিল্ড ফোর

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কাউন্সিলর : এর আগের গেইমটি যেখানে শেষ হয়েছিল, তার ছয় বছর পর অর্থাৎ ২০২০ সালে রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের দ্বন্দ্ব চরমে পৌঁছেছে। সময় ভালো যাচ্ছে না চীনেরও, সেখানকার অ্যাডমিরাল চ্যাং রাশিয়ার সহায়তায় চীন সরকারকে উৎখাত করে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে লড়াই শুরু করতে চাচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে আপনি খেলবেন মার্কিন সেনাবাহিনীর সার্জেন্ট ড্যানিয়েল রেকারের ভূমিকায়।

ব্যাটলফিল্ড ফোর গেইমটির শুরু এমন আকর্ষণীয় কাহিনীর মধ্য দিয়ে। দুর্দান্ত অ্যাকশনে পূর্ণ কিছু অ্যানিমেশনের মধ্য দিয়ে শুরু হবে কাহিনী। এমন বিশ্ব রাজনীতির ডামোডোলে খেলা শুরু করার পর পদে পদে মুগ্ধ হবেন গেইমের অসাধারণ গ্রাফিক্স ও পরিবেশ দেখে।

একটা সময় যুদ্ধের গেইম বলতে কেবল কল অফ ডিউটি বোঝাতো। তবে গত কয়েক বছরের টানা সাফল্যে এর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে আরেকটি গেইম সিরিজ- ব্যাটলফিল্ড। এ সিরিজের সর্বশেষ গেইম ব্যাটলফিল্ড ফোর মুক্তি পেয়েছে সম্প্রতি।

সিরিজের নির্মাতা ইলেকট্রনিক আর্টস এটি ডেভেলপ ও পাবলিশ করেছে।

একটি আদর্শ যুদ্ধের গেইমের মতোই ধ্বংসযজ্ঞ আর বৈচিত্র্যময় জায়গার কোনো অভাব নেই। আর প্রতিটি কাজই এত যত্নের সঙ্গে করা হয়েছে যে কোনো খুঁত বের করা কষ্ট। এর অবশ্য একটি অসুবিধাও আছে- বেশ হাই-এন্ডের পিসি না হলে গেইমটি খেলতে পারবেন না, কিংবা খেললেও এর পূর্ণ মজা পাবেন না।

battlefield game_techshohor

কিন্তু সিঙ্গেল প্লেয়ার গেইমপ্লেতে সিরিজের অন্যান্য গেইমগুলোর চেয়ে তেমন বড় কোনো পরিবর্তন আনা হয়নি। কিছু কিছু ত্রুটি রয়ে গেছে, যেমন- প্রতিটি অটোসেভের মধ্যে দীর্ঘ ব্যবধান, অনেক ক্ষেত্রে বিরক্তি আনতে পারে। কল অফ ডিউটি যাদের প্রিয়, তাদের কাছে কাহিনীর চরিত্রগুলোকে খুব বেশি আকর্ষণীয় মনে হবে না। তবে ব্যাটলফিল্ড ফোরের প্রাণ বলা হচ্ছে এর মাল্টিপ্লেয়ারকে।

বলা যায়, ফার্স্ট পারসন শুটিং গেইমের মাল্টিপ্লেয়ারে নতুন ধারা যুক্ত করেছে গেইমটি। তিনটি অঞ্চলে মাল্টিপ্লেয়ার খেলা যাবে- যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও রাশিয়া। মোট ৬৪ জন প্লেয়ার একসঙ্গে খেলতে পারবেন। এক্ষেত্রে ‘সিজ অফ সাংহাই’ নামে ম্যাপটির কথা বিশেষভাবে না বললেই নয়। এখানে সাংহাইয়ের আকাশচুম্বী দালানের ভেতর ঢুকে প্লেয়ারদের লড়াই করতে হবে। এক পর্যায়ে দালান ধসে পড়বে এবং এর উপর ভিত্তি করে ম্যাপও পরিবর্তিত হয়ে যাবে। দালানটি কিভাবে ধসে পড়বে ও এর ফলে কি ধরনের পরিবর্তন হবে, তা নির্ভর করবে প্লেয়ারদের উপরই।

এ ছাড়াও অস্ত্রশস্ত্র, ভেহিকল, ম্যাপ, আপগ্রেড- সবক্ষেত্রেই রয়েছে বৈচিত্র্যের ছড়াছড়ি। চমৎকার বেশ কিছু মোডে টানটান উত্তেজনার মধ্য দিয়ে লড়াই করতে গিয়ে একঘেয়েমি লাগবে না নিশ্চিত। এ ছাড়া জেতার জন্য আগে-পিছে চিন্তা করেই তারপরই গুলি চালাতে হবে; অদক্ষ গেইমারদের হাত আসতে সময় লাগতে পারে।

অসাধারণ গ্রাফিক্স আর উন্নত মাল্টিপ্লেয়ারের জন্য তাই ব্যাটলফিল্ড ফোরকে বলা হচ্ছে নেক্সট জেনারেশন গেইম। তবে কল অফ ডিউটির সঙ্গে পাল্লা দিতে হলে এর ক্যাম্পেইন মোডে আরও কিছু পরিবর্তন আনতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন গেইম বিশ্লেষকরা।

এক নজরে ভালো

– সেরা মাল্টিপ্লেয়ার এক্সপেরিয়েন্স
– অসাধারণ গ্রাফিক্স ও অ্যানিমেশন
– বৈচিত্র্য

এক নজরে খারাপ

– ক্যাম্পেইন মোডে নতুনত্ব নেই
– অনেক সাধারণ গেইমারে কাছে কঠিন লাগতে পারে

Related posts

*

*

Top