আমদানির বিকল্প হতে চায় জেনন ইলেকট্রনিক্স

অনলাইনে ইলেকট্রনিক্স পণ্য কেনাকাটায় চার মাসে বেশ পরিচিতি পেয়েছে জেনন ইলেকট্রনিক্স বিডি। শুধু পণ্য বিক্রিতে সীমাবদ্ধ না থেকে উৎপাদনেও নেমেছে নবীন উদ্যোক্তার প্রতিষ্ঠানটি। সফল এ উদ্যোগের কথা জানাচ্ছেন তুহিন মাহমুদ

চাঁদপুরের ছেলে তাওহিদুল ইসলাম রিপন মল্লিক সবেমাত্র ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বিএসসি শেষ করেছেন ইস্ট ওয়েস্ট ইউনিভার্সিটি থেকে। তবে শিক্ষাজীবন শেষ করার আগেই নেমে পড়েছিলেন ‘জেনন ইলেকট্রনিক্স বিডি’ নামের ই-কমার্স ব্যবসায়। সে কারণে স্বল্পতম সময়ে নিজের নতুন উদ্যোগ নিয়ে সফল হওয়ায় এখন পড়াশোনা শেষ হলেও চাকরি খুঁজতে হচ্ছে না। বরং পরিকল্পনা করছেন নিজের উদ্যোগকে দেশজুড়ে ছড়িয়ে দিতে। অন্যের কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরির দিকে মনোযোগ দিচ্ছেন।

TI Ripon mallik-TechShohor

রিপনের উদ্যোগের শুরুটা মিনি আইপিএস দিয়ে হলেও বর্তমানে ছোট-বড় আইপিএস, ইউপিএস, স্ট্যাবিলাইজার, সোলার, ট্রান্সফর্মার ইত্যাদি ইলেকট্রনিক্স পণ্য তৈরি ও বিক্রি করছেন। ইতোমধ্যে অনলাইনে এ জাতীয় পণ্য কেনাকাটার একটি পরিচিত নাম হয়ে উঠেছে জেনন ইলেকট্রনিক্স।

উদ্যোগের পেছনের কথা
ছোটবেলা থেকে রিপনের প্রবল ইচ্ছা ছিল নিজে থেকে কিছু করার। ভাবতেন এমন কিছু করবেন, যেটির মাধ্যমে লোকে তাকে চিনবে- মনে রাখবে। পড়াশোনার মাঝেই চাকরি নামক সোনার হরিনের পিছনে না ছুটে বরং ছোটবেলার সেই ইচ্ছাকে প্রাধান্য দিতে কাজ শুরু করলেন। পরিকল্পনা অনুযায়ী বিএসসি শুরুর পর ব্যবসা শুরুর পথ খুঁজতে থাকেন।

ভার্সিটির সেমিস্টারের ফি এদিক ওদিক করে শেয়ার ব্যবসায় নামলেন। তবে শেয়ার বিক্রি না হওয়ায় সফলতা আসেনি। পরে টিউশনির টাকা দিয়ে শুরু করেন এমএলএম (মাল্টি লেভেল মার্কেটিং) ব্যবসা। কিন্তু বিফল সেখানেও। এবার শুরু করলেন টিউশন মিডিয়ার ব্যবসা। সেখানেও পিছু হটতে হলো। সব কূল হারিয়ে অবশেষে সিদ্ধান্ত নিলেন, নিজের পরিচিত অঙ্গনে অর্থ্যাৎ যে বিষয়ে পড়াশোনা করছেন সে বিষয়ে কিছু করার।

শুরুটা যেভাবে
ইলেকট্রনিক্স ব্যবসা শুরুর পরিকল্পনা করলেও মূলধন নিয়ে ছিলেন বেকায়দায়। পরিবার থেকে কোনো সহায়তা না পাওয়ায় হতাশও ছিলেন খানিকটা। এরইমধ্যে ফেইসবুকে ‘চাকরি খুঁজব না চাকরি দেব’ গ্রুপে যুক্ত হলেন। একদিন একজনের পোস্টে দেখলেন তিনি আইপিএস ও ইউপিএস তৈরির কাজ জানেন। খোঁজ নিয়ে দেখলেন এ খাতে প্রথম অবস্থায় বিনিয়োগের পরিমাণ কম। তাই এর মাধ্যমেই ব্যবসা শুরুর উদ্যোগ নেন। যোগাযোগ করলেন সেই ব্যক্তির সঙ্গে। সিদ্ধান্ত নিলেন তাকে দিয়ে ইউপিএস ও আইপিএস তৈরি ও নিজে বাকি দিক সামলানোর। একটি নমুনাও তৈরি করলেন।

Xenon Electronics logo-TechShohor

কিন্তু হাতে টাকা না থাকায় পড়ে গেলেন চিন্তায়। সিদ্ধান্ত নিলেন বড় আকারের পরিবর্তে পরিবর্তে ছোট আইপিএস ও ইউপিএস তৈরির। অবশেষে বন্ধু স্বর্ণার কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা ধার নিয়ে কিছু নমুনা তৈরি করেন। ফেইসবুক পেইজের মাধ্যমে প্রচারণা শুরু করেন। নাম দেন ‘জেনন ইলেক্ট্রনিক্স বিডি’। ব্যস, এভাবেই শুরু।

যেভাবে এগিয়ে গেলেন
প্রথমদিকে তাদের তৈরি ‘মিনি আইপিএস’ নমুনাগুলো এলাকার চায়ের দোকানে দিলেন। ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে সম্ভাব্য ক্রেতাদের বোঝানোর চেষ্টা করলেন এটা ব্যবহারের সুবিধার দিকগুলো। বাজারদরের চেয়ে তুলনামূলকভাবে কম ও নিজেদের তৈরি বলে ক্রেতাদের মনোযোগ আকর্ষণের চেষ্টা করলেন।

‘চাকরি খুঁজব না চাকরি দেব’ গ্রুপে বিজ্ঞাপন দিলেন। সাড়াও পেলেন ভালো। ১৫ থেকে ২০ জেলা থেকে ডিলারশিপ নেওয়ার আবেদন আসল দ্রুততম সময়ে। চট্রগ্রাম থেকে দু’জন ১৩০টি মিনি আইপিএসের অর্ডার দিলেন।

Xenon Electronics-TechShohor (3)

অর্ডারের পণ্য ডেলিভারি দিতে আবারও ধার করলেন। এরপর নিজের ব্র্যান্ডের বক্স-কার্টুন তৈরির জন্য আরও টাকার দরকার পড়লে সাহস করে সিঙ্গাপুর প্রবাসী বড় ভাইয়ের কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা নেন। চট্রগ্রামে ডেলিভারি দিতে গেলে আরও কয়েকজন ডিলারশিপ নেওয়ার কথা জানালেন।

চাহিদা বাড়লে এবং নিজের মূলধন স্বল্পতার কারণে অংশীদার নিয়ে এগোনোর পরিকল্পনা করেন। নিজ গ্রামের এক দাদা সেলিম রেজা, নুরুজ্জামান ভাই ও তুহিন নামে তিন জনকে অংশীদার করলেন। সবাই এক লাখ টাকা করে বিনিয়োগ করলেন। এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।

প্রতিবন্ধকতা ছিল
কর্মচারী না থাকায় পণ্য ডেলিভারি করতে হতো নিজেদের। আর দূরে পাঠানোর জন্য কুরিয়ার সেবার সহায়তা নিতেন। কিন্তু প্রথম দিকে কুরিয়ারে কিছু নমুনা পাঠাতে গিয়ে অধিকাংশ নষ্ট হয়ে গেল। মূলধন গচ্ছা গেল বেশ। পরে অবশ্য সতর্ক থাকায় এমন সমস্যা এড়ানো গেছে।

বর্তমান অবস্থা
গত বছর অক্টোবরে শুরুর পর থেকে ভালো সাড়া পাওয়া রিপনের এ উদ্যোগ বর্তমানে দেশব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। মাত্র চার মাসে চট্রগ্রাম, রংপুর এবং চাঁদপুরে নিজস্ব শোরুম দেওয়া হয়েছে।

Xenon Electronics-TechShohor (2)

কিছুদিন আগে ‘চাকরি খুঁজব না চাকরি দেব’ গ্রুপের উদ্যোগে আয়োজিত ‘উদ্যোক্তা হাটে’ অংশ নেওয়া ২৫ স্টলের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান লাভ করে। মেলা থেকে গাজীপুরে একটি ১০ হাজার ওয়াটের সোলার প্রজেক্টের কাজ পায় জেনন ইলেক্ট্রনিক্স বিডি। সম্প্রতি গ্রুপের উদ্যোক্তা মুনির হাসানের রেফারেন্সে নেত্রকোনা বিরিসিরিতে ২ বিঘার উপর একটি রিসোর্টের সোলার প্রজেক্টের কাজও পায় তারা।

কিছুদিনের মধ্যে কোম্পানির আরও কিছু নতুন পণ্য বাজারে আসবে বলে জানান রিপন।

প্রচারণা
প্রচারনার ক্ষেত্রে এখন পর্যন্ত বেশিরভাগ শুধু ফেইসবুক পেইজ এবং গ্রুপের মাধ্যমে চালাচ্ছেন। কিছুদিন আগে ওয়েবসাইটের কাজ শুরু হলেও সেটি শেষ হয়নি। ফেইসবুকের মাধ্যমে ডিলারদের অর্ডার পাওয়ার পর পণ্য তৈরি করা হয়। যাত্রা শুরুর প্রথম মাসে ৩ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি হয় ফেইসবুকের মাধ্যমে। তাই এখনও এ সামাজিক মাধ্যমটিকে প্রাধান্য দিচ্ছেন বলে রিপন জানান।

আগামীর পরিকল্পনা
আগামীতে ইলেকট্রনিক্স পণ্য যেন চীন থেকে আমদানি করতে না হয় সে লক্ষ্যে কাজ করবে জেনন ইলেকট্রনিক্স। ওয়ালটন, সনির কাতারে পৌঁছে দিতে চান তার এ উদ্যোগকে।

xenon

এ ছাড়া দেশের ঘরে ঘরে উদ্যোক্তা তৈরি হোক সেই লক্ষ্যে ‘উদ্যোক্তা হতে চাই যারা (বিজনেস আইডিয়া, অভিজ্ঞতা) (https://www.facebook.com/groups/werbusinessman/)’ নামে একটি ফেইসবুক গ্রুপ খুলেছেন। উদ্যোক্তা তৈরির লক্ষ্যেও কাজ করে যাবার কথা জানান রিপন।

নতুনদের জন্য পরামর্শ
ব্যবসা শুরুর আগে অবশ্যই পরিকল্পনার সঙ্গে আগ্রহ থাকতে হবে। সঠিক ধারনা ছাড়া অন্যের দেখাদেখি শুরু করলে বিপদে পড়তে হবে। অবশ্যই ব্যবসা শুরুর আগে সেটি সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে শুরু করতে হবে।

যোগাযোগ
রিপন মল্লিক : https://www.facebook.com/ripan.ewu
জেনন ইলেকট্রনিক্স বিডির ফেইসবুক পেইজ – https://www.facebook.com/XenonElectronicsBd

Related posts

*

*

Top